Hotline: +8801729070571
Welcome to the official website of BRAC Institute of Skills Development (BRAC-ISD)

মাদারীপুরের ছেলে জাফর আহমেদ। ছয় বোনের এক ভাই। বড়ই আদরের। বাবা কৃষি কাজ করেন। চোখে-মুখে অপার স্বপ্ন। বড় হয়ে বিরাট মাদারীপুরের ছেলে জাফর আহমেদ। ছয় বোনের এক ভাই। বড়ই আদরের। বাবা কৃষি কাজ করেন। চোখে-মুখে অপার স্বপ্ন। বড় হয়ে বিরাট কিছু হবে। আরো অনেকের মতো জাফরেরও লক্ষ্য হলো বড় হয়ে একজন সফল ইঞ্জিনিয়ার হবে। বড় চাকরি করবে। ভালো চাকরি করে টাকা জমাবে। তারপর নিজের ব্যবসা শুরু করবে। জাফরের পরিবারের ইচ্ছে যে করেই হোক একমাত্র ছেলেকে বড় কিছু করতে হবে। সে যেন পরিবারের সম্মান আরো বাড়াতে পারে। বিশাল এক স্বপ্ন আর বুক ভরা আশা নিয়ে জাফর ২০০৫ সালে ঢাকা আসে। খিলগাঁও চাচার বাসায় উঠে। উদ্দেশ্য ইঞ্জিনিয়ার হবে। কিন্তু জাফর এবং পরিবারের স্বপ্ন আর প্রত্যাশাকে হার মানতে হয় অর্থের অনটনের কাছে। অচিরেই জাফরের স্বপ্ন ভঙ্গ হয়।
জাফর ইঞ্জিনিয়ারিং-এ ভর্তি হতে না পেরে হতাশ হয়ে পড়ে। অবশেষে সে ভর্তি একটা ডিপ্লোমা কোর্সে ভর্তি হয়। কিন্তু এখানে ডা শিখল তাতে জাফরের মন ভরলো না। সে নিজেই বুঝতে পারল, এ লেখাপড়া দিয়ে কখনও ভালো চাকরি বা বড় চাকরি পাওয়া যাবে না। ইঞ্জিনিয়ারদের হাতে কলমে যে শিক্ষা দরকার, তা সে কিছুই শিখতে পারেনি। মনে হতে লাগল, এতোদিনের লেখাপড়াটা পুরোটাই বুঝি পানিতে গেল। এসব কথা সে বন্ধুদের সঙ্গে আলাপ করত। আর নিজের ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করত। এ সময় একদিন এক বন্ধুর মাধ্যমে ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব স্কিলস ডেভেলপমেন্ট (BRAC-ISD) এর কোর্সের কথা জানতে পারে। বন্ধুর মুখেই শুনে, ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব স্কিলস ডেভেলপমেন্ট (BRAC-ISD) তে কারিগরি বিষয়ে হাতে কলমে শিক্ষা দেওয়া হয়। আবার কাজ শেষে চাকরিরও ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়। পুরো ব্যাপারটায় জাফরের কাছে নতুনত্ব মনে হলো। সে একদিন ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব স্কিলস ডেভেলপমেন্ট (BRAC-ISD) তে আসে। এখানে দেখে ২য় ব্যাচের ক্লাস চলছে। কয়েকজন শিক্ষার্থীর সঙ্গে আলাপ করে এর সত্যতা নিরুপন করে। তারপর সে এখানে ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব স্কিলস ডেভেলপমেন্ট (BRAC-ISD)-তে ৩য় ব্যাচে রেফ্রিজারেশন এ্যান্ড এয়ারকন্ডিশনিং এ ভর্তি হয়। এখানে সে হাতে কলমে কলমে করে সব কাজ শিখে। প্রতিদিন নতুন নতুন বিষয়ে ধারণা লাভ করে। এসব সম্পর্কে জাফরের এতোদিন তাত্তি¡ক ধারণা ছিল। বর্তমানে সে হাতে কলমে শিখে সার্বিক জ্ঞানার্জন করেছে। অনেক ভুলে যাওয়া বিষয় আবার মনে করতে পেরেছে। হাতে কলমে শেখার কারণে আর ভুলার সম্ভাবনা থাকল না। ৩ মাসের প্রশিক্ষণ শেষে এখন সে নিজেকে একজন ইঞ্জিনিয়ার হিসাবে পরিচয় দিতে আর ভয় পাই না। এর মধ্যে ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব স্কিলস ডেভেলপমেন্ট (BRAC-ISD) থেকে জাফরের জন্য একটা চাকরির ব্যবস্থা করা হয়। জাফর আহমেদ ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব স্কিলস ডেভেলপমেন্ট (BRAC-ISD) এর ব্যবস্থাপনায় এ.সি. ওয়ার্ল্ডের ভিআরভি প্রজেক্টে চাকরিতে যোগদান করে। শুরুতেই এখানে তাকে ৭ হাজার টাকা বেতন দেওয়া হয়। এর মাধ্যমে জাফরের হতাশা অনেকাংশে কেটে গেছে। সে এখন বলে, ‘অন্যের অধীনে বেশিদিন চাকরি করব না। আমার ইচ্ছে নিজে কিছু করব। চাকরিতে মৌলিক স্বাধীনতা থাকে না। কিছুদিন চাকরি করে টাকা জমাবো। তারপর নিজে একটা ব্যবসা শুরু করব। এতে নিজে ভালোভাবে চলতে পারব আবার অন্যকেও সহযোগিতা করতে পারব।’ জাফর ৫/৭ বছর চাকরি করবে। তারপর ব্যবসার কথা ভাববে। ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব স্কিলস ডেভেলপমেন্ট (BRAC-ISD) সম্পর্কে সে বলে, এখানে অনেক কিছু শেখানো হয়। হাতে কলমে শেখানো হয়। কোর্সে অতিরিক্ত হিসাবে সফট স্কিল এবং ডিসেন্ট ওয়ার্ক সম্পর্কে ধারণা প্রদান করা হয়, আমি মনে করি এসব কিছু পরবর্তীকালে আমাদের ব্যক্তিগত জীবনেও কাজে লাগবে। এক কথায় এখানে আসলে বিফল হবে না। ’